আলবেনিয়া ওয়ার্ক পারমিট ভিসা। আলবেনিয়া ভিসা প্রসেসিং।

আসসালামু আলাইকুম। আজকে আমরা কথা বলব আলবেনিয়া ভিসা প্রসেসিং। আলবেনিয়া ওয়ার্ক পারমিট ভিসা। আলবেনিয়া তে জব ভিসা নিয়ে বিভিন্ন তথ্য শেয়ার করব। এছাড়াও কেন আপনার আলবেনিয়া যাওয়া উচিৎ, আলবেনিয়া গেলে আপনি কি কি সুযোগ সুবিধা পাবেন খরচ কিরকম হবে সকল তথ্য শেয়ার করব।

আলবেনিয়া ওয়ার্ক পারমিট ভিসা

আলবেনিয়া ওয়ার্ক পারমিট ভিসা

আলবেনিয়া সম্পর্কে কিছু তথ্য।

আলবেনিয়া ইউরোপ এর একটি দেশ তবে নন সেনজেন ভুক্ত দেশ। আলবেনিয়া ইউরোপ এর এমন একটি দেশ যেদেশর বেশিরভাগ মানুষ মুসলিম। এরকম দেশ ইউরোপ এ নেই বললেই চলে। আলবেনিয়া কিন্ত ইউরোপ এর দেশ হলেও এটা কোন সেনজেন দেশ না। তাই এখানের ভিসা পেলে কিন্তু আপনি ভিসা ছাড়া অন্য দেশে যেতে পারবেন না।

আলবেনিয়া যেতে কত টাকা লাগে।

আমরা সব সময় একটা কথা বলে থাকি, আপনি যেই দেশ এই যান না কেন আপনার কত টাকা লাগবে এটা ডিপেন্ড করে আপনি কিভাবে যাচ্ছেন তার উপর। আপনি যদি দালাল ধরে যান তাহলে একেক দালাল আপনার থেকে একেক রকম টাকা চার্জ করবে। বর্তমান এ আলবেনিয়ার জন্য দালালরা সাধারণত ৭-১২ লক্ষ টাকার মতো নিয়ে থাকে। এই টাকার বাহির এও আপনার ১/২ লক্ষ টাকা খরচ হবে। যদি দালাল ৮ লক্ষ টাকা নেয় তাহলে আপনার মোট ১০ লক্ষ টাকার মতো খরচ হবে।

এখন আসি আপনি নিজে নিজে প্রসেস করলে কিরকম খরচ হবে। আপনি যদি নিজে নিজে ভিসার জন্য আবেদন করতে চান সবার প্রথম এই আপনার প্রয়োজন হবে জব অফার লেটার। আলবেনিয়া তে আপনি অনলাইন এ আবেদন করে জব অফার লেটার নিতে পারবেন। অথবা আপনার পরিচিত কেউ যদি সেখানে থাকে তাহলে তার মাধ্যমে আপনি জব অফার লেটার নিতে পারেন। তারপর ভিসা নিয়ে খুব সামান্য টাকায় আপনি আলবেনিয়া যেতে পারবেন।

আলবেনিয়া জব ভিসা কিভাবে পাব।

আলবেনিয়ার কোন এম্ভাসি বাংলাদেশ এ নেই। তবে এর জন্য কোন সমস্যা হবে না। আলবেনিয়ার ভিসার জন্য অনলাইন এ আবেদন করা যায়। যদি দালাল ধরে যান তাহলে তো তারাই আবেদন করে দিবে। যদি নিজে নিজে প্রসেস করেন আপনি ই অনলাইন এ আবেদন করতে পারবেন। আপনি চাইলে অভিজ্ঞ কারো সাহায্য নিতে পারেন। নিজে নিজে অনলাইন এ আবেদন করে মাএ ২/৩ লক্ষ টাকা বা তার ও কম খরচে আপনি আলবেনিয়া যেতে পারবেন।

আলবেনিয়া গেলে কি কি সুবিধা পাব।

যারা সেন্ট্রাল ইউরোপ এ যেতে চান তারা সরাসরি বাংলাদেশ থেকে না গিয়ে আলবেনিয়া থেকে যেতে পারবেন। আলবেনিয়ার ভিসা যেহেতু অনলাইন ভিসা তাই পাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। আলবেনিয়া থেকে সহজে সেনজেন ভুক্ত অন্য দেশে যাওয়া যায়। বাংলাদেশ থেকে আলবেনিয়া যাওয়ার পর সেখানে ১ বছর কাজ করে বৈধ ভাবে আপনি সেন্ট্রাল ইউরোপ এ যেতে পারবেন। অনেক এ তার আগেই অবৈধ ভাবে চলে যায়। আমরা কখনো অবৈধ ভাবে যাওয়াকে উৎসাহিত করি না।

আলবেনিয়া গেলে কি কি অসুবিধা হবে।

আলবেনিয়া যেহেতু ইউরোপের একটি দেশ তাই এই দেশ থেকে সহজে অন্য দেশে মুভ করা যায়। বিশেষ করে অনেক বাংলাদেশী এই সুযোগটাকে কাজে লাগিয়ে খুব সহজে তারা এই দেশ থেকে ইউরোপের অন্য দেশে চলে গেছে । তারা যখন আলবিনিয়াতে গেছে তখন তাদের সাথে এক বছর বা দুই বছরের কাজের কন্টাক থাকলেও তারা একদিনও কাজ না করে সেখান থেকে চলে গেছে। এর ফলে যেই কোম্পানি তাকে নিয়েছে তাকে অনেক সমস্যার সম্মুখীন হতে হয়েছে।

বাংলাদেশ ও নেপালের মানুষ বেশির ভাগই এই কাজ করেছে তারা অবৈধভাবে অন্য দেশে চলে গেছে। এর ফলে বর্তমান সময়ে যারা আলবিনিয়াতে যাচ্ছে তাদেরকে বাংলাদেশী অথবা নেপালের পাসপোর্ট দেখলে এয়ারপোর্ট থেকেই রিটার্ন করে দিচ্ছে। তাই আপনি যদি কোন এজেন্ট দিয়ে যান তাহলে অভ্যষ্যই আগে এই বিষয় এ ভালোভাবে কথা বলে নিবেন। কারন যদি আপনাকে যেই কম্পানিতে কাজ দিয়েছে সেই কম্পানি থেকে রিভিব না করে তাহলে আপনাকে পূনরায় বাংলাদেশ এ পাঠিয়ে দেওয়া হবে।

আলবেনিয়া ভিসা চেক।

আপনি যদি কোন দেশে যেতে চান আর দালাল এর মাধ্যেমে যান। তাহলে এটা জানা আপনার জন্য অনেক দরকারি যে আপনাকে যে ভিসা দিল এটা আসল না নকল। বর্তমান এ প্রায় সব দেশের ই ভিসা চ্যাক করার জন্য সরকারি ওয়েবসাইট রয়েছে। আপনি সেখানে থেকে চ্যাক করতে পারবেন আপনার ভিসা আসল না নকল। যদি আসল হয় আপনি দালাল কে টাকা দিবেন। যদি আসল না হয় সেটা ও আপনি জানতে পারলেন। আলবেনিয়া ভিসা চ্যাক করার সাইট নিচে দেওয়া হল।

আলবেনিয়া ভিসা চেক: http://www.moi.gov.al/

আলবেনিয়া ওয়ার্ক পারমিট ভিসা

আরো পড়ুন: বাংলাদেশ থেকে ইউরোপ যাওয়ার সহজ উপায়

Releted teg: আলবেনিয়া ওয়ার্ক পারমিট ভিসা , আলবেনিয়া ভিসা প্রসেসিং, আলবেনিয়া ভিসা আপডেট ২০২৪, আলবেনিয়া ভিসা চেক, job in albania, আলবেনিয়া ওয়ার্ক পারমিট ভিসা, আলবেনিয়া ভিসা চেক,

Leave a Comment